Home / অপরাধ / প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে ওয়ারেন্ট প্রাপ্ত আসামী।
Bangla news24
আসামি প্রসেনজিৎ ঢালী

প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে ওয়ারেন্ট প্রাপ্ত আসামী।

এই সংবাদটি প্রিন্ট করুন
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধিঃ পাইকগাছা খুলনা

খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলা যুবলীগের বহিস্কৃত নেতা প্রসেনজিতের বিরুদ্ধে মন্দিরের ভূমি দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এঘটনায় মামলা হলে তার বিরুদ্ধে আদালত ওয়ারেন্ট জারি হলেও এখনো দিব্বি ঘুরে বেড়াচ্ছেন বুক ফুলিয়ে।এলাকায় তার রয়েছে নিজস্ব গ্যাং এবং তাদের তাদের বিরুদ্ধে বেশ কিছু অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের কারনে থানায় অভিযোগও রয়েছে।
জানা যায় ঘটনা ২০১৫ সালের শেষ দিকে প্রসেনজিৎ তার দলীয় প্রভাব খাটিয়ে স্থানীয় একটা মন্দিরের জমি দখল করেছে আত্মসাৎ করেছে উক্ত মন্দিরের টাকা । যারা প্রতিবাদ করেছে তাদের উপর হমকি ধমকি ও সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করেছে।।
স্থানীয় প্রশাসন এসব বিষয়টি দেখেও না দেখার চেষ্টা করছে বারবার। গত সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম দিকে তার বিরুদ্ধ মাদকদ্রব্য ব্যবসার অভিযোগে যুবলীগ থেকে তাকে বহিষ্কার করা হয়।তার বহিষ্কারাদেশের একটা কপিও আমাদের হাতে এসেছে।
এছাড়াও খুলনা ছয় আসনের জনপ্রিয় নেতা ও জাতীয় সংসদ সদস্য জনাব আক্তারুজ্জামান বাবুর নাম ভাঙ্গিয়ে বিভিন্ন জায়গায় নিজের স্বার্থ হাছিল করছে বলে অভিযোগ রয়েছে।স্থানীয়গণ আশ্চর্য হয়ে আছে এই কারণে যে, একটা ওয়ারেন্ট প্রাপ্ত আসামি কিভাবে এমন প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াতে পারে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন দোকানী জানান, “তার একটা গ্রুপ আছে এবং সে এই গ্রুপের মাধ্যমে এলাকায় মাদক ব্যবসা র বিস্তার ঘটাচ্ছেন”
এ ব্যাপারে তার কাছে বারবার ফোন দেওয়ার চেষ্টা করে কোন ফল পাইনি।
পাইকগাছা উপজেলা বাসীর সমস্যা ও সম্ভাবনা
শ্রী শ্রী রাধাকৃষ্ণ জিউ মন্দিরের ভোগদখল!
উক্ত মন্দিরের সেবায়ত হয়ে ধীরে ধীরে উক্ত মন্দিরের সমস্ত টাকা আত্মসাৎ করে নেয় এবং ভুয়া দলিল দস্তাবেজ তৈরি করে মন্দিরের জায়গা দখলে নিয়ে নেয়।এ নিয়ে মামলা হয় প্রসেনজিৎ ঢালী ও তার সহযোগী রহিম সরদার এবং বিলাশ মন্ডলের বিরুদ্ধে। পরে তদন্তে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ এবং তার প্রেক্ষিতে সিনিয়র জুডিসিয়াল আদালত প্রসেনজিৎ ঢালি পিতাঃ রামপদ ঢালী সাং খড়িয়া ভড়েঙ্গার চক ও তার সহযোগী রহিম সরদার এবং বিলাশ মন্ডলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরওয়ানা জারি করে গত ২৭/০৮/২০১৯ তারখে।কিন্তু এক অদৃশ্য কারণে তার বিরুদ্ধে পুলিশ ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হচ্ছে।সাধারণ মানুষকে হুমকি ধমকি দিয়ে ভীত সন্ত্রাস্থ করে রেখেছে এই প্রসেনজিৎ কুমার।
ঘটনার গভীরতা আচ করতে পেরে অধিকতর অনুসন্ধানে নামি আমরা।সেখানে আমাদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সিদ্ধান্তে আসি যে তার পক্ষ নিয়ে এলাকার ইউপি চেয়ারম্যান তুহিন কাগজী সহ ক্ষমতাশীন দলের অনেকের সাথে সখ্যতার বিষয়টি। পরে তুহিন কাগজীকে ফোনে বারবার চেষ্টা করেও পাওয়া যায় নি।
এদিকে গত মাসে তার একটা ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে যেখানে তাকে মদ্যপানের অবস্থায় দেখা যায়।
পরে এ বিষয়ে উপজেলা যুবলীগের নেতারা সিদ্ধান্ত নিয়ে তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়।
তবে আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে দল থেকে বহিষ্কার হওয়ার পরও বিভিন্ন এলাকায় সে নতুন করে কমিটি তৈরি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এমন একটি অনুষ্ঠানের ছবি গত কয়েকদিন আগে ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় নতুন করে অস্বস্তি তৈরি হয়।এভাবে ক্রমেই বেপরোয়া হয়ে উঠছে প্রসেনজিৎ তার সহযোগী রহিম সরদার ও তার বন্ধু বিলাশ মন্ডল ।
এদিকে ২০১৫ সালে তার বিরুদ্ধে মামলা করেন সুকুমার ঢালি নামের এক ব্যক্তি। যার অভিযোগ ছিলো তার মাছের পুকুরে জোরপূর্বক ভাইরাস জনিত ঘেরের পানি ছেড়ে দেওয়া যেখানে তার বিরুদ্ধে মারধর ও হত্যার হুমকি এবং স্বর্ণালঙ্কার ছিনিয়ে নেওয়ার মতো গুরুতর অভিযোগ আনা হয়েছে।এভাবে একটা মানুষ ক্রমেই বেপরোয়া হয়ে ওঠায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকার স্থানীয় জনগণ।
নাম না প্রকাশ করার শর্তে তিনি বলেন “দলের নাম ভাঙ্গিয়ে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করছেন প্রসেনজিৎ ও তার সহযোগীরা।
এছাড়া তার বিরুদ্ধে পাইকগাছা থানায় জিডি ও আরো কয়েকটা মামলা আছে বলে জানা গেছে।
এমতাবস্থায় স্থানীয় প্রশাসন তার বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নিচ্ছে সেই প্রতিক্ষায় আছেন স্থানীয় জনগণ।

মন্দিরের ভূমি দখলের অভিযোগ

About WNN

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *